সাইন্স ফিকশন মুভিসাইন্স-ফিকশন

The Day After Tomorrow (Criticism)

, April 30, 2019 WAT
Last Updated 2019-10-26T21:25:38Z
Advertisement
একজন জলবায়ু বিজ্ঞানীকে অবশ্যই ওয়াশিংটন থেকে নিউ ইয়র্ক শহর পর্যন্ত একটি দুঃসাহসিক ভ্রমণ করতে হবে। কারণ তার ছেলে সেখানে একটি আকস্মিক অজানা ঝড়ে আটকা পড়ে আছে যেটি পুরো পৃথিবীকে একটি নতুন তুষারযুগে নিমজ্জিত করে ফেলেছে

খুঁটিনাটি-

পরিচালক - রোলান্ড এমরিচ প্রযোজক - রোলান্ড এমরিচ, মার্ক গর্ডন গল্প - আর্ট বেল, হোয়াইটলি স্ট্রাইবার চিত্রনাট্য - রোলান্ড এমরিচ, জেফরি ন্যাচমানফ ধরণ - সাইন্স ফিকশন, ডিজাস্টার
সিনেমার দৃশ্য
অভিনয়ে - ডেনিশ কুয়াড, জ্যাক গিলেনহাল, ইয়ান হলম মিউজিক - হ্যারাল্ড ক্লোজার সিনেমাটোগ্রাফি - উয়েলি স্টেইগার সম্পাদনা - ড্যাভিড ব্রেনার প্রোডাকশন কোম্পানি - সেন্ট্রোপলিস এন্টারটেইনমেন্ট, মার্ক গর্ডন কোম্পানি পরিবেশনায় - ২০ সেঞ্চুরি ফক্স মুক্তি - ২৮ মে, ২০০৪ রানিং টাইম - ১২৩ মিনিট দেশ - যুক্তরাষ্ট্র ভাষা - ইংরেজি বাজেট - $১২৫ মিলিয়ন বক্স অফিস - $৫৪৪ মিলিয়ন
মুভি  ব্যানার পোস্টার

ভাল দিক-

ডিজাস্টার মুভিপ্রেমীদের এই নতুন কন্সেপ্ট অবশ্যই ভাল লাগবে। তাছাড়া মুভিটিতে স্পেশাল ইফেক্টের কাজ দেখে মন জুড়িয়ে যাবে ...

খারাপ দিক-
চিত্রনাট্যে অনেক বৈজ্ঞানিক অসংগতি ও ভুল মতবাদ দেখানো হয়েছে যা সত্যিই দৃষ্টিকটু লেগেছে...

সিনেমার দৃশ্য

কাহিনী সারসংক্ষেপ -

জ্যাক হল নামক এক বিজ্ঞানী এই পৃথিবীর আবহাওয়া পরিবর্তনের নমুনা নিয়ে গবেষণা করে। সে মনে করে যে বৈশ্বিক উষ্ণতার কারণে পৃথিবীতে একটি নতুন তুষারযুগ ঘটা অনিবার্য। তার এই ধারণা সবাইকে জানানোর জন্য সে একটি সম্মেলনের ডাক দেয় যেখানে ভাইস প্রেসিডেন্ট উপস্থিত ছিলেন। যখন তারা বুঝে যে হলের এই ধারণার কারণে ঐ প্রশাসনের পৃষ্ঠপোষক কিছু নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠান সমস্যায় পড়তে পারে তখন তারা হলকে বহিষ্কার করে দেয়। কিন্তু অন্য একজন বিজ্ঞানী ঠিকই বুঝতে পারে যে হল কিছু একটা জানাতে চেয়েছিল। সে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে কাজ করে এবং একদিন দেখে যে পৃথিবীর আবহাওয়া বহুলাংশে পরিবর্তন হচ্ছে।
সিনেমার দৃশ্য
সে তখন হলকে এই ব্যাপারে জানায় এবং হল এটি দেখে আশ্চর্য হয়ে যায়। সে আবারো সরকারকে এই বিষয়ে জানায় কিন্তু ভাইস প্রেসিডেন্ট আবারো তাকে অবিশ্বাস করে। তবে আবহাওয়া যখন আরো খারাপ হতে শুরু করে তখন হল রাষ্ট্রপতিকে উপদেশ দেয় দেশের দক্ষিণাংশ থেকে সবাইকে সরিয়ে ফেলতে যতক্ষণ না আবহাওয়ার উন্নতি হয়। উত্তরাংশের সবাই এই শৈত্যপ্রবাহ থেকে নিজেদের বাঁচিয়ে রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। ঘটনাক্রমে হল খবর পায় যে তার ছেলে স্যাম নিউ ইয়র্ক শহরে আটকা পড়ে আছে। হল তার ছেলেকে বলে, সে সেখানে পৌঁছানো পর্যন্ত স্যাম যেন নিজেকে সুরক্ষিত রাখে। কিন্তু আবহাওয়ার অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়। হল কি পারবে তার ছেলেকে বাঁচাতে? জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই দেখতে হবে এই মুভিটি...
লিখেছেন - আতিক আলম, সাইন্স ফিকশন মুভি সমালোচক