মহাকাশ

কি এই মেসিয়ার অবজেক্টস?

, July 03, 2019 WAT
Last Updated 2019-10-26T21:25:33Z
Advertisement

কাঁকড়া নীহারিকা(crab nebula/M 1/NGC 1952) হল পৃথিবী থেকে ৬৫০০ আলোকবর্ষ দূরে বৃষ নক্ষত্রমণ্ডলে(constellation Taurus) অবস্থিত সুপারনোভার অবশেষ এবং একটি পালসার নেবুলা(pulsar nebylae) ৷ চীনা জ্যোতির্বিদেরা সর্বপ্রথম ১০৫৪ সালে একটা সুপারনোভা(supernova) পর্যবেক্ষণ করেন,যা এতটাই উজ্জ্বল ছিলো যে খালি চোখে দিনের আকাশেও দেখা যেতো, পরবর্তীতে ১১ শতকে মধ্যপ্রাচ্যের জ্যোতিবিদেরা একে লিপিবদ্ধ করে ৷ জাপানিরা ১৩শ শতাব্দীতে একে ' ভুত তারা' বলে আখ্যায়িত করে ৷১৭৫৮ সালে ফরাসী জ্যোতিবিজ্ঞানী চার্লস মেসিয়ার একে পুনরায় পর্যবেক্ষণ করেন ৷ তখন তিনি একে হ্যালির ধুমকেতুর মতো কিছু ভাবেন,যা পুনরায় পৃথিবীতে ধেয়ে আসছে বলে ভাবেন ৷ কিন্তু যখন তিনি বুঝতে পারেন এটি স্থির,পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে না তখন তিনি একে মহাকাশের মেঘ সদৃশ বস্তু এবং একে ধুমকেতু থেকে আলাদা করে আখ্যায়িত করেন ৷ এটি অপেশাদার জ্যোতির্বিদদের অন্যতম আকর্ষণ। নেবুলাটি খালি চোখে দৃশ্যমান নয়,তবে সাধারণ টেলিস্কোপে স্পষ্ট ধরা পরে ৷ পৃথিবীর আকাশে এর তীব্রতা শনির মুন টাইটানের কাছাকাছি ৷ নেবুলাটি উপবৃত্তাকার ফিলামেন্টের স্তুপের ন্যায় এবং একটি হালকা ফ্যাকাসে নীল আভা দিয়ে আবৃত ৷ খোলা আকাশে এর আকার ৬ archminutes,যেখানে পৃথিবী হতে দেখা পুরো চাঁদের আকার ৩০ archminutes. নক্ষত্রের অবশেষ হিসেবে এতে প্রধাণত রয়েছে আয়নিত H ও He ৷ এছাড়াও C,O,N,Fe,Ne,S ৷ এর ফিলামেন্টের তাপমাত্রা ১১,০০০K থেকে ১৮,০০০K এবং ঘনত্ব প্রতি সেন্টিমিটারে ১৩০০ পারটিকেল ৷ওজন ৪.৬±১.৮ সৌরভর ৷ নীহারিকাটি আকাশগঙ্গা(milkyway) ছায়াপথের পারসিয়াস(persius arm) বাহুতে অবস্থিত এবং এর ব্যাস ১১ আলোকবর্ষ. এটি প্রতিসেকেন্ড ১৫০০ কিমি প্রসারিত হচ্ছে ৷ আজ থেকে ৮০০০ পূর্বে সূর্যের চেয়ে বড় নক্ষত্র তার জীবদ্দশার শেষ পর্যায়ে যখন তার বহিঃস্থ আবরন মহাকাশে ছুড়ে মেরেছিল তখন এর জন্ম হয়।আর নক্ষত্রটির ঘন কেন্দ্র(core) ঘূর্ণনশীল নিউট্রন নক্ষত্র বা পালসারে পরিণত হয়। এর কেন্দ্রে EN-1040 নামের একটি নিউট্রন স্টার(পালসার) অবস্থান করছে,যার ব্যাস মাত্র ১৮-৩০ কিমি এবং প্রতি সেকেন্ডে স্পিন ৩০.২ ৷পালসারটির বিকিরনে নিহারীকাটির গ্যাস ও ধুলিকনা জ্বলে উঠে। পালসারটি খুব শক্তিশালী গামা রে প্রেরণ করে,যা পৃথিবীতে পৌছাতে পৌছাতে রেডিও ওয়েভে পরিণত হয় ৷ সম্প্রতি নাসা নীহারিকাটির এক অভূতপূর্ব সুন্দর স্থিরচিত্র প্রকাশ করা হয়েছে।যা হাবল,চন্দ্র এক্স-রে, স্পিতজার,এক্স,এম,এম নিউট্রন মানমন্দিরের সম্মিলিত চিত্র।এক্স,এম,এম নিউট্রন বেগুনি,চন্দ্র এক্স-রে বর্ণালী,হাবল দৃশ্যমান আর স্পিতজার অবলোহিত আলোর মাধ্যমে নীহারিকাটির স্থিরচিত্র ধারণ করেছে।
-নাজমুল হাসান