close

পৃথিবী ব্যতীত অন্য যেকোনো গ্রহে মানুষের অস্তিত্ব নিশ্চিত করার চেষ্টায় একদল অভিযাত্রী মহাকাশে ভ্রমণ করে...



Interstellar movie poster

খুঁটিনাটি -

পরিচালক - ক্রিস্টোফার নোলান প্রযোজক - এমা থমাস, ক্রিস্টোফার নোলান গল্প ও চিত্রনাট্য - জোনাথন নোলান, ক্রিস্টোফার নোলান ধরণ - সাইন্স ফিকশন, এডভেঞ্চার অভিনয়ে - ম্যাথিউ ম্যাককেনে, এনা হাথওয়ে, জ্যাসিকা চ্যাস্টেন মিউজিক - হ্যান্স জিমার সিনেমাটোগ্রাফি - হয়েট ভ্যান হয়েটমা সম্পাদনা - লি স্মিথ প্রোডাকশন কোম্পানি - লিজেন্ডারি পিকচার্স পরিবেশনায় - প্যারামাউন্ট পিকচার্স, ওয়ার্নার ব্রাদার্স পিকচার্স মুক্তি - ৭ নভেম্বর, ২০১৪ রানিং টাইম - ১৬৯ মিনিট দেশ - যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ভাষা - ইংরেজি বাজেট - $১৬৫ মিলিয়ন বক্স অফিস - $৬৭৮ মিলিয়ন

ভাল দিক -

বরাবরের মত এবারও নোলানের আরেকটি দুর্দান্ত কাহিনী নিয়ে ফিরে আসা। এই মুভির ভিজুয়াল ইফেক্ট ছিল চোখে লাগার মত। সাথে অসাধারণ ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ও সাউন্ড মিক্সিং মুভিটিকে দারুণ উপভোগ্য করে তোলে।

খারাপ দিক -

মুভিটির রানিং টাইম একটু বেশি মনে হবে। অবশ্য তা দর্শকের রুচি ভেদে নির্ভর করে।


কাহিনী সারসংক্ষেপ-

২১ শতকের মধ্যবর্তী সময়ে ফসলে ক্ষয়কর পদার্থ ও ধূলিকণার ঝড় মানবজাতির অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ফেলে দেয়। শুধুমাত্র শস্যকণা শেষপর্যন্ত টেকসই ফসল হিসেবে থাকে। পৃথিবী এমন এক অবশ্যম্ভাবী বাস্তবতায় অভ্যস্ত হয় যেখানে উঠতি জেনারেশনদের নতুন কিছু শেখানো হয় যেমন চাঁদে অবতরণের ঘটনাগুলো ভুয়া ছিল। এই হুমকির সম্মুখীনে পড়া মানব জাতিকে টিকিয়ে রাখার লক্ষ্যে নাসার সাবেক পাইলট জোসেফ কুপার একদল মহাকাশচারীকে নিয়ে ওয়ার্মহোল বা কৃষ্ণগহ্বরের ভিতর গমন করে অনুসন্ধানে নামে। তাদের উদ্দেশ্য থাকে বসবাসযোগ্য বিকল্প একটি গ্রহের খোঁজ করা। মানব জাতি কি শেষ পর্যন্ত বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা পেয়ে উদ্বর্তিত থাকতে পারবে? জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই দেখতে হবে মাস্টারপিস এই মুভিটি...
Criticized by : Atiq Alam critics

(Author)
পূর্ববর্তী আর্টিকেল পরবর্তী আর্টিকেল